বাংলা ‍ভাষার উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ সম্পর্কে জ্ঞানমূলক প্রশ্ন ও উত্তর

আর্টিকেল সূচি

এই আর্টিকেলে আমরা বাংলা ভাষার উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ কিছু জ্ঞানমূলক প্রশ্ন ও প্রশ্নের উত্তর নিয়ে নিচে আলোচনা করবো।

তাই আর দেরী না করে চলুন মূল আলোচনা শুরু করা যাক।

ভাষা কেন পরিবর্তিত হয়?

উত্তর: স্বরভক্তি, ধ্বনি বিপর্যয়, স্বরাগম, স্বরলোপ, অপিনিহিতি, অভিশ্রুতি, স্বরসঙ্গতিসহ বিভিন্ন ধ্বনি পরিবর্তনের কারণে ভাষা পরিবর্তিত হয়।

 

বাংলা ভাষার উৎপত্তি হয়েছে কীভাবে?

উত্তর: বাংলা ভাষার উৎপত্তি নিয়ে দ্বিমত আছে। সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়ের মতে-মাগধী অভ্রংশের মাধ্যমে এবং মুহম্মদ শহীদুল্লাহর মতে – গৌড়ী প্রাকৃত থেকে গৌড়ী অপভ্রঅংশের মাধ্যমে বাংলা ভাষার উৎপত্তি।

 

বাঙলা ভাষার ইতিবৃত্ত – গ্রন্থটির রচয়িতা কে?

উত্তর: ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ।

 

ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর মতে বাংলা ভাষার উৎপত্তি কোন প্রাকৃত থেকে?

উত্তর: গৌড়ী প্রাকৃত থেকে।

 

বাংলা ভাষা মাগধী প্রাকৃত থেকে মাগধী অপভ্রংশের মধ্য দিয়ে উৎপন্ন – এ মত কার?

উত্তর: এ মত ড. সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়ের।

 

কোন ভাষা বাংলা ভাষার মূল উৎস?

উত্তর: বৈদিক ভাষা।

 

ODBL – এর পূর্ণরূপ কী?

উত্তর: ODBL = The Origin and Development of the Bengali Language.

 

বাংলা ভাষার উৎপত্তি কোন শতাদ্বীতে?

উত্তর: সপ্তম শতাদ্বীতে।

 

মাতৃভাষার বিবেচনায় বাংলা ভাষার অবস্থান কত?

উত্তর‌: চতুর্থ।

 

‘বাংলা’ শব্দের প্রথম ব্যবহার পাওয়া যায় কোন গ্রন্থে?

 উত্তর: আইন-ই-আকবরী গ্রন্থে।

 

প্রাচীন বাংলার সাহিত্যিক নিদর্শন কী? বা বাংলা ভাষার প্রাচীনতম আদি নিদর্শনের নাম কী?

উত্তর: চর্যাপদ।

 

বাংলা ভাষা কোন ভাষা বংশ থেকে উদ্ভুত?

উত্তর: ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষাবংশ।

 

বাংলা ভাষা ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষার কোন শাখা থেকে জন্মলাভ করে?

উত্তর: শতম শাখা।

 

বাংলা মাগধী প্রাকৃত থেকে উৎপন্ন – এই অভিমত কোন পণ্ডিতের?

উত্তর: ড. সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়ের।

 

মূল ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষার প্রধান শাখা কয়টি ও কী কী?

উত্তর: মূল ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষার প্রধান শাখা ২টি। যথা: ১. কেন্তম ও ২. শতম।

 

ড. শহীদুল্লাহ নব্যভারতীয় আর্য ভাষার শ্রেণিবিভাগ করেছেন কীভাবে?

উত্তর: প্রতীচ্য, মধ্যদেশীয়, মধ্যবর্তী, প্রাচ্য, দাক্ষিণাত্য এভাবে।

 

যে-কোনো দু’জন বাঙালি ভাষাবিজ্ঞানীর নাম লিখ

উত্তর: ১. ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ও ২. ড. সুনীতিকুমার চট্টপাধ্যায়।

 

তুলনামূলক ও ঐতিহাসিক ভাষাবিজ্ঞান – গ্রন্থের লেখক কে?

উত্তর: হুমায়ুন আজাদ।

 

কতো নদী সরোবর – গ্রন্থের লেখকের নাম কী?

উত্তর: হুমায়ুন আজাদ।

 

ব্রজবুলি ভাষা কি?

উত্তর: ব্রজবুলি হচ্ছে কৃত্রিম সাহিত্যিক ভাষা। এটি বাংলা ও মৈথিলি ভাষার মিশ্রণে তৈরি।

 

এ পর্যন্ত প্রাপ্ত চর্যাপদ বাংলাভাষার আদি নিদর্শন কী?

উত্তর: চর্যাপদ।

 

বাংলা শব্দের ব্যবহার প্রথম কে, কোন গ্রন্থে করেন?

উত্তর: আবুল ফজলের আইন-ই-আকবরী গ্রন্থে।

 

বাংলা ভাষা গদ্যে চলিত রীতির প্রবর্তক কে? বা বাংলা গদ্যে  চলিত রীতির প্রবর্তক কে?

উত্তর: বাংলা ভাষায় গদ্যে চলিত-রীতির প্রবর্তক হচ্ছেন প্রথম চৌধুরী।

 

বর্ণ কাকে বলে?

উত্তর: ধ্বনি নির্দেশক চিহ্নকে বলা হয় বর্ণ।

 

আরও পড়ুন:

 

বাংলায় প্রতিধ্বনি শব্দ বা Echo word ব্যবহারের রীতি কোন ভাষা থেকে এসেছে?

উত্তর: দ্রাবিড়। যেমন: দুধ-টুধ, জল-টল ইত্যাদি।

 

মোটামুটি বাংলা ভাষার উপর কোন ভাষাগুলোর প্রভাব রয়েছে?

উত্তর: ফারসি, ওলন্দাজ, পর্তুগিজ, ফরাসি ও ইংরেজি ভাষার প্রভাব।

 

বাংলা ভাষায় যুগ সন্ধিকাল কোন সময়?

উত্তর: ১২০১ খ্রিঃ থেকে ১৩৫০ খ্রিঃ পর্যন্ত।

 

বঙ্গীয় শব্দকোষ কার লেখা?

উত্তর: হরিচরণ চট্টোপাধ্যায়।

 

কোন বাংলা স্বরধ্বনির বর্ণমালা নেই কিন্তু স্বরধ্বনি হিসেবে ব্যবহৃত হয়?

উত্তর: অ্যা।

 

বাংলা ভাষায় ফারসির প্রভাব কত দিক থেকে?

উত্তর: দু’দিক থেকে। যথা: ১. শব্দের দিক ও ২. ব্যাকরণের দিক থেকে।

 

বাংলা শব্দের প্রথম ব্যবহার পাওয়া যায় কোন গ্রন্থে?

উত্তর: আবুল ফজলের আইন-ই-আকবরী গ্রন্থে।


ওলন্দাজ এর কোন শব্দগুলো বাংলা বলে মনে হয়?

উত্তর: হরতন, রুইতন, ইস্কাপন, তুরুপ ইত্যাদি।

 

প্রাচীন বাংলা কাব্যে ব্যবহৃত ছন্দের নাম কী?

উত্তর: প্রাচীন বাংলা কাব্যে ব্যবহৃত ছন্দের নাম পয়ার ছন্দ।

 

বাংলা গদ্যে বিরামচিহ্নের সার্থক ব্যবহার করেছেন কে? বা বাংলা গদ্যে প্রথম বিরাম চিহ্নের সার্থক ব্যবহার করেন?

উত্তর: ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর।

 

বাংলা, আসামী, উড়িয়ার ‘অ’ কারের উচ্চারণ কেমন?

উত্তর: সংবৃত ( ইংরেজি ভর্ম শব্দের ম এর মতো )।

Spread the love

হ্যালো "ট্রিকবিডিব্লগ" বাসী আমি ওসমান আলী। দীর্ঘদিন থেকে অনলাইনে লেখালেখির পেশায় যুক্ত আছি। Trick BD Blog আমার নিজের হাতে তৈরি করা একটি ওয়েবসাইট। এখানে আমি প্রতিনিয়ত ব্লগিং, ইউটিউবিং ও প্রযুক্তি সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ টিপস এন্ড ট্রিক্স রিলেটেড আর্টিকেল প্রকাশ করে থাকি।

Leave a Comment