বিটকয়েন কি? | বিটকয়েনের কাজ কি? (বিস্তারিত)

তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে পৃথিবী যেন হাতের মুঠোয় চলে এসেছে। আমরা এখন ইন্টারনেট ব্যবহার করে পৃথিবীর যেকোন প্রান্তের খবর এক মুহূন্তেই জানতে পারি।

যাইহোক, আজকে আমাদের আলোচনার বিষয় হচ্ছে বিটকয়েন কি? (What is Bitcoin in Bangla?), বিটকয়েন কিভাবে কাজ করে? ইত্যাদি।

টাকা-পয়সা, রুপী, দিনার, ডোলার এইসব মুদ্রার বিষয়ে আমরা সবাই জানি। কারণ, এগুলো প্রত্যেকটা একেকটা দেশের মুদ্রার নাম। এই মুদ্রা গুলো হাতে স্পর্শ করা যায় এবং এই মুদ্রা গুলোর ডিজিটাল সংস্করণও রয়েছে।

অর্থাৎ, আপনি টাকা না দিয়েও বিভিন্ন কার্ড বা একাউন্ট (বাংলাদেশের ক্ষেত্রে বিকাশ, নগদ ইত্যাদি) ব্যবহার করে শুধুমাত্র অনলাইনে ডিজিট সেন্ট করে অনলাইনে যে কোন কিছু কেনাকাটা করতে পারবেন।

বিটকয়েনও একই ভাবে জিটিটাল বা ইলেট্রিক কারেন্সি বা মুদ্রা যা ব্যবহার করে আপনি অনলাইনে অনেক কিছু কেনাকাটা করতে পারবেন।

তবে আপনি টাকার মতোন বিটকয়েনকে হাতে স্পর্শ করতে পারবেন না।

বিটকয়েন এর কাজ কি?, বিটকয়েন দিয়ে আয় করার কোন উপায় আছে কিনা জানতে চাইলে পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

 

বিটকয়েন কি বা বিটকয়েন কাকে বলে?

 

সহজ ভাষায় বললে, বিটকয়েন হচ্ছে এক ধরনের ভার্চুয়াল কারেন্সি (Virtual Currency) বা ডিজিটাল মুদ্রা। যে মুদ্রার ব্যবহার কেবল অনলাইনেই সম্ভব। অনলাইন দুনিয়া ব্যতিত এই মুদ্রার কোন অস্তিত্ব আপনি খুঁজে পাবেন না।

যেহেতু বিটকয়েন ‍ডিজিটাল মুদ্রা বা ইলেক্ট্রিক মুদ্রা তাই এই ধরনের ভার্চুয়াল মুদ্রাকে হাতে স্পর্শও করা যায় না।

সুতরাং, শুধুমাত্র অনলাইনেই কোন কিছু কেনা বেচার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয় এমন এক ধরনের ভার্চুয়াল মুদ্রার নাম হচ্ছে বিটকয়েন।

বিটকয়েন দেখার জন্য বা কোন কিছু কেনা বেচা করার জন্য আপনাকে বিটকয়েন ওয়ালেট ব্যবহার (Bitcoin Wallet) করতে হবে।

আপনি মোবাইল এপস অথবা ওয়েবসাইটের যে কোন একটি বিটকয়েন ওয়ালেট ওয়েবসাইটে গিয়ে একাউন্ট তৈরি করলে সেখান থেকেই বিটকয়েন সংক্রান্ত সবকিছু ম্যানেজ করতে পারবেন।

 

বিটকয়েনের কাজ কী?

 

বিটকয়েন যে শুধুমাত্র নির্দিষ্ট কোন কাজে ব্যবহার করা হয় এমনটা ভাবলে ভুল হবে। কারণ, অনলাইনে বিটকয়েন দিয়ে আপনি অনেক কাজ করতে পারবেন।

যেমন: আপনার কাছে যদি বিটকয়েন থেকে থাকে তাহলে তা দিয়ে আপনি বিভিন্ন ই-কমার্স ওয়েবসাইট থেকে টাকা বা ডোলারের বদল বিটকয়েন দিয়ে কেনা কাটা করতে পারবেন।

তাছাড়া বিটকয়েন যখন দাম কম থাকে তখন অনেকেই বিটকয়েন কিনে রাখে, আবার যখন বিটকয়েনের দাম বেড়ে যায় তখন তা সেল করে দিয়ে লাভবান হয়ে থাকেন।

 

বিটকয়েনের আবিষ্কারক কে?

 

উইকিপিডিয়ার মতে, ২০০৯ সালে সাতোশি নাকামোতা ছদ্মনামে কোন এক ব্যক্তি বা গোষ্ঠী এই মুদ্রাটির প্রচলন শুরু করেন যা পিয়ার টু পিয়ার মুদ্রা বলে অভিহিত হয়।

আপনি যদি বিটকয়েনের ইতিহাস সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে চান তবে উইকিপিডিয়ার এই ’বিটকয়েন’ পাতাটি পড়তে পারেন।

 

আজ ১ বিটকয়েন সমান কত টাকা?

 

বিটকয়েনের দাম প্রতিদিন কমা বাড়া করতেই থাকে। নির্দিষ্ট কোন দামে স্থির থাকে না। আমি এখানে যে বিটকয়েনের যে দামটা দেখাবো আপনি আর্টিকেলটি পড়ার সময় হয়তো দাম কমেও যেতে পারে আবার বেড়েও যেতে পারে।

এবার চলুন ১ বিটকয়েন সমান কোন দেশে কত টাকা তা দেখে নেই।

আজ বাংলাদেশে এক বিটকয়েন সমান কত টাকা?

যখন আর্টিকেলটি লেখছি তখন বাংলাদেশে ১ বিটকয়েন সমান ৪৮২৫২৬০.০১ টাকা। আরও ভালোভাবে বুঝার জন্য নিচের গ্রাফটি দেখুন।

 

বাংলাদেশে এক বিটকয়েন সমান কত টাকা?
বাংলাদেশে এক বিটকয়েন সমান কত টাকা?

 

আজ ভারতে ১ বিটকয়েন সমান কত রুপী?

ভারতে আজ ১ বিটকয়েন সমান ৩৬৫২৮৪৫.৭১ রুপি। আরও ভালোভাবে বুঝার জন্য নিচের গ্রাফটি দেখুন।

ভারতে ১ বিটকয়েন সমান কত রুপী?
ভারতে ১ বিটকয়েন সমান কত রুপী?

 

আজ ১ বিটকয়েন সমান কত ডোলার?

আজ ১ বিটকয়েন সমান ৪৩৮৪০.৯০ ডোলার। আরও ভালোভাবে বুঝার জন্য নিচের গ্রাফটি দেখুন।

১ বিটকয়েন সমান কত ডোলার?
১ বিটকয়েন সমান কত ডোলার?

 

বিটকয়েন ওয়ালেট কি বা এর কাজ কী?

 

যেহেতু বিটকয়েন হচ্ছে ভার্চুয়াল কারেন্সি এবং এটি হাতেও স্পর্শ করা যায় না তাই বিটকয়েন দেখার জন্য বা ম্যানেজ করার জন্য প্রয়োজন হয় বিটকয়েন ওয়ালেট অ্যাকাউন্টের।

বিটকয়েন ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট (Bitcoin wallet account) এর মাধ্যমে আপনার কত বিটকয়েন রয়েছে, বিটকয়েন আদান-প্রদান, বিটকয়েন দিয়ে কোন কিছু কেনাকাটা করা এসব কার্যপ্রণালী আপনি করতে পারবেন।

Bitcoin wallet account কিছু প্রকারভেদ রয়েছে। যথা:

  • মোবাইল ওয়ালেট,
  • ডেস্কটপ ওয়ালেট,
  • হার্ডওয়ার ওয়ালেট,
  • অনলাইন ওয়ালেট।

বিটকয়েন ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট বিভিন্ন ভাবে তৈরি করা যায়। যেমন: বিটকয়েন ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট তৈরি করার জন্য অনলাইনে অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে ও বিভিন্ন মোবাইল এপসও রয়েছে। আপনি এইসব ওয়েবসাইট বা এপসের যেকোন একটিতে গিয়ে প্রয়োজনী তথ্য দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করলেই আপনার বিটকয়েন ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট তৈরি হয়ে যাবে।

বিটকয়েন ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট একটি হলেই যথেষ্ট। আপনি একটি অ্যাকাউন্ট দিয়েই বিটকয়েন সংক্রান্ত সব ধরনের কাজ করতে পারবেন।

বর্তমান সময়ে বিটকয়েন ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট তৈরি করার দুইটি জনপ্রিয় ওয়েবসাইটের নাম নিচে দেওয়া হলো:

১. Zebpay ও

২. Unocoin।

 

বিটকয়েন দিয়ে কিভাবে আয় করা যায়?

 

বিটকয়েন দিয়ে আয় করার বিভিন্ন উপায় রয়েছে। তার মধ্যে কয়েকটি উপায় নিয়ে নিচে আলোচনা করা হয়েছে।

 

১. কম দামে বিটকয়েন কিনে বেশি দামে বিক্রি করে আয়

 

বিটকয়েনের দাম সেয়ার বাজারের মতোন প্রতিনিয়ত কমা বাড়া করতেই থাকে। বিটকয়েনের কোন মালিক নেই এবং কোন সরকার বা কর্তৃপক্ষ এটিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না।

আপনি নিয়মিত বিটকয়েনের দরদামের উপর নজর রাখলে দেখবেন যে মাঝেমধ্যে বিটকয়েনের দাম অনেক কমে যায়। তখন অনেকেই বিটকয়েন কিনে রাখেন এবং পরবর্তীতে যখন বিটকয়েনের দাম বেড়ে যায় তখন তা বিক্রি করে অনেক লাভবান হয়ে থাকেন।

বি:দ্র: বর্তমানে এক বিটকয়েনের দাম অনেক টাকা। তাই আপনি চাইলে বিটকয়েনের ক্ষুদ্রতম অংশ সাতোশি কিনতে পারবেন। ১ বিটকয়েন সমান ১০০ মিলিয়ন সাতোশি। সেজন্য আপনি সুযোগ বুঝে কম দামে সাতোশি করতে পারবেন।

 

২. অনলাইনে পণ্য বিক্রি করে টাকার বদলে বিটকয়েন নেওয়া

 

আপনি অনলাইনে পণ্য বিক্রি করে ক্রেতার কাছ টাকার বদ বিটকয়েন নিতে পারেন যদি ক্রেতার কাছে বিটকয়েন থাকে। এতে করে আপনার পণ্যও বিক্রি হবে এবং বিটকয়েনও আয় হবে। যখন বিটকয়েনের দাম বেড়ে যাবে তখন সেই বিটকয়েনগুলো সেল দিয়ে অনেক লাভবান হতে পারবেন।

 

৩. বিটকয়েন মাইনিং করে আয়

 

বিটকয়েন আদান-প্রদান করার সময় তা ভেরিফাই বা যাচাই করা হয়। এই যাচাই করার জন্য একজন মানুষের প্রয়োজন হয়। চাইলে যে কেউ এই কাজ করতে পারবে। তবে তার হাই কনফিগারেশনের একটি কম্পিউটার থাকতে হবে।

যে ব্যক্তি বিটকয়েন আদান-প্রদান করার কাজটি যাচাই করে তার অ্যাকাউন্ট কিছু পরিমাণ বিটকয়েন অর্থাৎ বিটকয়েনের ক্ষুদ্রতম অংশতম সাতোশি এড হয়। এটিকেই বলা হয় বিটকয়েন মাইনিং করা।

এভাবে আপনার একাউন্টে বিটকয়েন এড হতেই থাকবে এবং আপনি চাইলে যেকোন সময় আপনার বিটকয়েন গুলো সেল দিয়ে অনেক টাকা আয় করতে পারবেন।

 

এই উপরোক্ত উপায়গুলোর মাধ্যমে আপনি বিটকয়েন দিয়ে করতে করতে পারবেন।

 

বিটকয়েন মাইনিং কি বা কাকে বলে?

 

উপরের আলোচনা থেকে হয়তো বিটকয়েন মাইনিং কি (What is bitcoin mining in bangla) এ বিষয়ে ধরনা পেয়েছেন।

বিটকয়েন দিয়ে পণ্য ক্রয়-বিক্রয় করা যায়, অনেক সময় শুধু বিটকয়েনও কেনা-বেচা করা হয়। আর এই কাজগুলো করার সময় যে বিটকয়েন একজনের অ্যাকাউন্ট থেকে আরেকজনের অ্যাকাউন্টে আদান-প্রদান করা হয় এই পুরো Transaction টি একটি ব্যক্তি দ্বারা ভেরিফাই করা হয়।

যিনি Transaction টি যাচাই করেন তাকে বলা হয় Bitcoin Miners। এই বিটকয়েন মাইনারসরা Transaction যাচাই করে দেওয়ার ফলে উপহার হিসেবে তাদের অ্যাকাউন্টে কিছু বিটকয়েন বা বিটকয়েনের ক্ষুদ্রতম অংশ সাতোশি পেয়ে থাকেন।

আর একজন বিটকয়েন মাইনারস পুরো প্রক্রিয়াটির মাধ্যমে যেভাবে বিটকয়েন আয় করে থাকেন তাকেই বলা হয় বিটকয়েন মাইনিং।

চাইলে যে কেউ এই বিটকয়েন মাইনিং এর কাজটি করতে পারবেন। তবে এই কাজ করার জন্য অবশ্যই আপনার কাছে হাই কনফিগারেশনের একটি কম্পিউটার থাকতে হবে যার দাম পড়বে অনেক টাকা। তাই অনেকের পক্ষেই এত দাম দিয়ে হয়তো কম্পিউটার কিনা সম্ভব হবে না।

 

বিটকয়েন কিভাবে কেনা যায়?

 

বিটকয়েন কেনার জন্য আপনার অবশ্যই একটি বিটকয়েন ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে। বিটকয়েন ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে ইতোমধ্যেই উপরে আলোচনা করা হয়েছে।

বিটকয়েন ওয়ালেট একাউন্ট তৈরি করার সময় সেখানে আপনাকে একটি ইউনিক এডড্রেস (Unique address) দেওয়া হবে।

এই ইউনিক এডড্রেসটি দিয়েই আপনার অ্যাকাউন্টে আপনি বিটকয়েন কিনতে পারবেন।

 

বিটকয়েন সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত কিছু প্রশ্ন ও উত্তর

 

নিচে বিটকয়েন সংক্রান্ত প্রায়শই জিজ্ঞেস করা হয় এমন কিছু প্রশ্ন ও উত্তর দেওয়া হলো:

১. বিটকয়েন কত সালে আবিষ্কার হয়েছে?

উত্তর: ২০০৯ সালে।

 

২. বিটকয়েন আবিষ্কারকের নাম কী?

উত্তর: সাতোশি নাকামোতা (ছদ্মনাম)।

 

পরিশেষে, বিটকয়েন কি?, বিটকয়েনের কাজ কি? এসব বিষয়ে পুরো আর্টিকেলটি পড়ার পর আশাকরি এ বিষয়ে আপনি পূর্ণাঙ্গ ধারণা অর্জন করতে পেরেছেন। তারপরও যদি এ বিষয়ে আরও নতুন কোন প্রশ্ন থাকে তবে তা কমেন্টে জানাতে পারেন।

Spread the love

হ্যালো "ট্রিকবিডিব্লগ" বাসী আমি ওসমান আলী। দীর্ঘদিন থেকে অনলাইনে লেখালেখির পেশায় যুক্ত আছি। Trick BD Blog আমার নিজের হাতে তৈরি করা একটি ওয়েবসাইট। এখানে আমি প্রতিনিয়ত ব্লগিং, ইউটিউবিং ও প্রযুক্তি সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ টিপস এন্ড ট্রিক্স রিলেটেড আর্টিকেল প্রকাশ করে থাকি।

Leave a Comment