বাসে উঠলে বমি করার কারণ কী? | বাসে বমি আসা বন্ধ করার ২১ টি উপায়

বাসে উঠলে বমি আসাটা বিরক্তিকর একটি বিষয় এবং সেই সময় খুবই অসস্বি বোধ হয়।

আমি নিজেও এই সমস্যার ভুক্তভূগি ছিলাম।

তাই আজ এই আর্টিকেলে বাসে উঠলে বমি কেন হয়? এবং বাসে বমি আসা বন্ধ করার ২১টি উপায় আপনাদের সাথে সেয়ার করবো।

তাই দেরী না করে চলুন মূল আলোচনা শুরু করা যাক।

 

বাসে উঠলে বমি কেন হয়? বা বাসে উঠলে বমি করার কারণ কী?

 

দীর্ঘ সময় বাস যাত্রা করলে অনেক সময় বমি বমি ভাব আসে। আবার মাথা ব্যাথাও হয়ে থাকে অনেক জনের।

অনেকেই হঠাৎ করে বমি হওয়ার জন্য আতঙ্কিতও হয়ে যায়।

বাসে উঠলে বমি হওয়ার কারণ সমূহ হলো:

 

  • গাড়ির গতির কারণে অসুস্থতা বা মোশন সিকনেস,
  • শারীরিক ব্যাথা,
  • মাইগ্রেইনের ব্যাথা,
  • বদ হজমের সমস্যা,
  • অতিরিক্ত ধূমপান,
  • অতিরিক্ত ক্লান্তি।

 

বাসে বমি আসা বন্ধ করার করণীয় কি? বা বাসে বমি আসা বন্ধ করার ২১ টি উপায়

 

বাসে বমি আসা বন্ধ করার করণীয় বা বাসে বমি আসা বন্ধ করার ২১ উপায় নিচে দেওয়া হলো:

১. বাসে বমি আসা বন্ধ করার সবচেয়ে সহজ একটি উপায় হচ্ছে লেবু। আপনার যদি বাসে বমি বমি লাগে তবে এক টুকরো লেবু মুখে নিয়ে কিছু সময় চুষতে নিতে পারেন। অথবা এক টুকরো লেবুর রস ও এক চিমটি লবণ এক গ্লাগ পানির সাথে মিশিয়ে পান করতে পারেন।

২. বমি বমি ভাব দূর করার জন্য আপনি অল্প কিছু জিড়া গুড়ো করে নিয়ে তা খেতে পারেন। এতে করেও আপনার বমি বমি ভাব দূর হয়ে যাবে। কারণ, জিরা বমি বমি ভাব দূর করার একটি কার্যকরী উপাদান।

৩. এক থেকে দুটো লবঙ্গ মুখে চিবোলে বমি বমি ভাব দূর হয়ে যাবে। অথবা এক কাপ পানির সাথে এক চামচ লবঙ্গের গুঁড়ো মিশিয়ে তা পাঁচ মিনিট যাবত সিদ্ধ করে নিন। তারপর যখন সেই পানি ঠান্ডা হয়ে যাবে তখন তা পান করুন। এতেও খুব দ্রুত আপনার বমি বমি ভাব দূর হয়ে যাবে।

৪. যদি আপনার মোসন সিকনেসের সমস্যা থেকে থাকে তবে যাত্রা পথে সবসময় আপনার সাথে লেবু অথবা লবঙ্গ রাখবেন। যখনই রাস্তায় যাত্রাপথে আপনার বমি বমি লাগবে তখনই মুখে লেবু কিংবা লবঙ্গ দিয়ে দিবেন যা আপনার বমি বমি ভাব দূর করবে।

৫. আপনার যদি হজমের সমস্যা থেকে থাকে তবে বা দ্রুত আপনার বমি বমি ভাব কাটিয়ে উঠতে চান তবে এক টেবিল চামচ লেবুর রসের সাথে এক টেবিল চামচ আদার রস এবং সাথে অল্প পরিমাণে সোডা মিশিয়ে খেতে পারেন। কারণ, এমন বমি বমি ভাব দূর করতে আদা খুবই উপকারী একটি উপাদান।

৬. জানালা খোলা রেখে জানালার পাশে বসার চেষ্টা করুন যাতে বাইরের আলো-বাতাস ভিতরে প্রবেশ করতে পারে এবং ভিতরের দিকে তাকিয়ে না থেকে বাইরে তাকিয়ে থাকুন এতে করেও আপনার বমি বমি ভাব দূর হয়ে যাবে।

৭. গাড়িতে পিছনের দিকে বসলে মনে হয় গাড়ির গতি বেশি এতেও অনেকের বমি বমি ভাব আসে। তাই গাড়ির সামনের দিকে বসার চেষ্টা করুন।

৮. গাড়ি যেদিকে যাচ্ছে তার বিপরীত দিক হয়ে বসলেও বমি বমি ভাব আসে। তাই গাড়ি যেদিক হয়ে চলছে সেদিক বরারবর বসার চেষ্টা করুন।

৯. গাড়িতে বসে সবসময় বমির কথা না ভেবে নিজেকে অন্য কিছুতে ব্যস্ত রাখার চেষ্টা করুন। যেমন: কোনো কিছু ভাবতে পারেন বা গান শুনতে পারেন। কারণ, বারবার বমির কথা ভাবলেও বমি আসার সম্ভবনা থাকে। পারলে লম্বা লম্বা শ্বাস নিবেন এবং নিজেকে শান্ত রাখবেন।

১০. অনেকেই অন্যের বমি করা দেখলে নিজেও বমি করে দেয়। আপনারও যদি এমন কোনো সমস্যা থাকে এমন বাসে যদি দেখেন যে কারোও বমি বমি ভাব তাহলে তার দিকে বেশি না তাকিয়ে অন্যকিছু ভাবুন।

১১. বাস যাত্রা করার আগের রাতে ভালো ভাবে ঘুমিয়ে নিবেন এবং বাসে যাত্রাকালে নিজের চোখ জোড়া হালকা করে বন্ধ করে রাখুন।

১২. চলন্ত গাড়িতে মোবাইল ব্যবহার করা বা বই পড়া থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করুন।

১৩. ভরপেট খেয়ে বাসে উঠবেন না আবার না খেয়েও উঠবেন না। বাস যাত্রা করার পূর্বে অল্প কিছু খেয়ে যাত্রা শুরু করবেন। তবে এসিডিটি হয় এমন ধরনের খাবার খাওয়া থেকে এবং যাত্রাপথে বাইরের খাওয়া থেকে নিজেকে বিরত রাখুন।

১৪. বমি বমি ভাব দূর করার জন্য আদা চা খেতে পারেন অথবা আদাকে কুঁচি কুঁচি করে চিবুতে পারেন যা আপনার বমি বমি ভাব দূর করবে।

১৫. বমি বমি ভাব দূর করার জন্য লেবু পাতার গন্ধও কার্যকরী, সাথে কমলা লেবুর গন্ধ থেকেও বমি বমি ভাব দূর হয়। তাছাড়া টক জাতীয় ফলও খেতে পারেন। মাথা ব্যাথা এবং বমি বমি ভাব দূর করার জন্য গরম পানিতে লবণ ও লেবুর মিশিয়েও পান করতে পারেন। তবে আপনার যদি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে থাকে তবে লেবু না খাওয়াটাই ভালো হবে।

১৬. হজমের সমস্যা থেকে থাকলে দারুচিনি চিবুতে পারেন। কারণ, দারুচিনি হজমের সমস্যা দূর করতে সাহাজ্য করে। আর আপনার যদি হজমের সমস্যার জন্য বমি বমি ভাব আসে তবে তা দারুচিনিই সমাধান করে দিবে।

১৭. বমি বমি ভাব দূর করতে লবঙ্গ খুবই কার্যকরী একটি উপাদান। তাই যখনি আপনার বমি বমি ভাব মনে হবে তখনি এক টুকরো লবঙ্গ মুখে নিয়ে চিবুতে পারেন। লবঙ্গ বমি বমি ভাব দূর করার পাশাপাশি মুখের দুর্গন্ধও দূর করে থাকে।

১৮. ভ্রমণ যদি খুব লম্বা সময়ের হয়ে থাকে তবে যাত্রা পথে বিরতি নিতে পারেন  এবং বিরতির সময়ে হাত-মুখ ধুয়ে ফ্রেশ হয়ে নিতে পারেন।

১৯. যদি আপনার অ্যাসিডিটির সমস্যা থেকে থাকে তবে আপনি পুদিনা পাতা দিয়ে চা খেতে পারেন বা খালি পুদিনাপাতাও খেতে পারেন।

২০. বমি বমি ভাব যদি খুব বেশিই হয়ে থাকে তবে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী অসুধ নিয়ে খেতে পারেন।

২১. আপনার মন ও মুখ দুটোই ব্যস্ত রাখার জন্য আপনি যাত্রাপথে চুইংগাম খেতে পারেন। এতে করেও বমি বমি ভাব হওয়ার সম্ভবনা কমে যাবে।

 

আরও পড়ুন:

 

গাড়িতে বমি না করার ঔষুধের নাম কী?

 

উপরোক্ত উপায় গুলো যদি আপনার বমি বমি ভাব দূর করতে কাজে না আসে তবে বমি নিরোধক কিছু ট্যাবলেট রয়েছে।

গাড়িতে বমি না করার ঔষুধের নাম গুলো হলো:

 

  • হায়োসিন,
  • প্রোমিথাজিন,
  • মেকলোজিন,
  • ওনডানসেটরন।

 

মেডিসিন ভ্রমণ করার আগের দিন রাতে ১টি এরং ভ্রমণ করার আধাঘণ্টা আগে একটি সেবন করতে পারেন।

[বি:দ্র:] উপরোক্ত মেডিসিনের নাম গুলো বিভিন্ন অনলাইন সোর্স হতে সংগৃহীত করা। সবচেয়ে ভালো হয় বমির ঔষুধ নেওয়ার সময় ডাক্তারকে জিজ্ঞেস করে ঔষুধ ক্রয় করা।

ধন্যবাদ।

Spread the love

হ্যালো "ট্রিকবিডিব্লগ" বাসী আমি ওসমান আলী। দীর্ঘদিন থেকে অনলাইনে লেখালেখির পেশায় যুক্ত আছি। Trick BD Blog আমার নিজের হাতে তৈরি করা একটি ওয়েবসাইট। এখানে আমি প্রতিনিয়ত ব্লগিং, ইউটিউবিং ও প্রযুক্তি সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ টিপস এন্ড ট্রিক্স রিলেটেড আর্টিকেল প্রকাশ করে থাকি।

Leave a Comment