ফেসবুক গ্রুপ থেকে টাকা আয় করার ১০টি কার্যকরী উপায়

ফেসবুক কম বেশি আমরা সকলেই ব্যবহার করে থাকি। এবং অনেকেই এ বিষয়ে জানি যে ফেসবুক থেকে ইনকাম করা যায়। তবে সেটা ফেসবুক পেজ এর মাধ্যমে।

আমরা অনেকেই জানি না যে ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমেও টাকা ইনকাম করা যায়। আপনার মোটামোটি সদস্যের একটি ফেসবুক গ্রুপ থাকে তাহলে সেই গ্রুপের মাধ্যমে টাকা আয় করেতে পারবেন।

সেজন্যই মূলত এই  আর্টিকেলে ফেসবুক গ্রুপ থেকে কিভাবে টাকা আয় করবো? বা ফেসবুক গ্রুপ থেকে টাকা আয় করার ১০টি কার্যকরী উপায় নিয়ে নিচে আপনাদের জন্য আলোচনা করা হয়েছে।

তাই আর দেরী না করে চলুন মূল আলোচনায় আসা যাক।

 

১. নিজের পণ্য সেল করা

 

আপনার যদি একটি ফেসবুক গ্রুপ থেকে থাকে এবং আপনার কাছে যদি কোন পণ্য থাকে তাহলে সেই পণ্যগুলো আপনার ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে সেল করতে পারবেন।

বর্তমান সময়ে আপনি কোথাও না যেয়েও কুরিয়ার সার্ভিস (Courier Service) এর সারা দেশে পণ্য ডেলিভারী করতে পারবেন।

আপনার যে পণ্যটি রয়েছে আপনি সে বিষয়ে আপনার গ্রুপে লেখালেখি করুন। কারও পছন্দ হলে আপনাকে অর্ডার করবে। তখন আপনি তার কাছ থেকে তার ঠিকানা ও যোগাযোগ নাম্বারটি নিয়ে তার ঠিকানায় কাঙ্খিত পণ্যটি কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে পাঠিয়ে দিবেন।

এভাবে আপনি ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে নিজের পণ্য সেল করে টাকা আয় করতে পারবেন।

 

২.অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করা

 

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে কোন একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট (E-commerce website) এ গিয়ে তাদের এফিলিয়েট প্রোগ্রামে যুক্ত যে কোন পণ্যের এফিলিয়েট লিংক তৈরি করে তা প্রমোশন করা। যখন কেউ সেই লিংকে ক্লিক করে কোন কিছু কিনবে তখন আপনার একাউন্টে নির্দিষ্ট পরিমাণ কমিশন যুক্ত হয়ে যাবে।

আপনিও এই কাজটি আপনার ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে করতে পারবেন। প্রথমে কোন একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইটের এফিলিয়েট প্রোগ্রামে যুক্ত হয়ে সেখানে পণ্যের এফিলিয়েক লিংক তৈরি করুন। তারপর সেই লিংক আপনার গ্রুপে প্রোমট করুন।

কেউ সেই লিংকে প্রবেশ করে কোন কিছু কিনলে অটোমেটিক আপনার একাউন্টে টাকা যুক্ত হয়ে যাবে।

কয়েকটি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করার ই-কমার্স ওয়েবসাইটের নাম নিচে দেওয়া হলো:

  • অ্যামাজন (Amazon)
  • ক্লিকব্যাংক (ClickBank)
  • আলীবাবা (Alibaba)
  • ই-বে (e-Bay)
  • ফ্লিপকার্ট (Flipkart)
  • সেয়ার এ সেল (ShareASale)
  • সি জে এফিলিয়েট (CJ Affiliate)
  • শপিফাই (Shopify)
  • হাবস্পট (HubSpot)
  • ফাইবার (Fiverr)

এভাবে আপনি ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে টাকা আয় করতে পারবেন।

 

৩. ব্র্যান্ড প্রমোশন/প্রোডাক্ট প্রমোশন

 

আপনার গ্রুপটি যখন বড় হবে তখন বিভিন্ন ব্র্যান্ড তাদের কোম্পানি বা তাদের কোন প্রোডাক্টকে আপনার গ্রুপে প্রমোট করার জন্য বলবে। অথবা আপনি নিজেও বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন তাদের পণ্যকে আপনার গ্রুপে প্রমোট করার কথা বলে।

তারপর তারা আপনার গ্রুপটি দেখবে, দেখার পর যদি তাদের কাছে আপনার গ্রুপটি ভালো লাগে তাহলে তারা আপনার ফেসবুক গ্রুপে তাদের ব্র্যান্ড প্রমোশন বা প্রোডাক্ট প্রমোশন করতে বলবে। এবং তার বিনিময়ে আপনি সেখানে টাকা চার্জ করতে পারবেন।

এভাবেই আপনি ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে ব্র্যান্ড প্রমোশন/প্রোডাক্ট প্রমোশন (Brand Promotion/Product Promotion) করে আয় করতে পারবেন।

 

৪. মনিটাইজেশন বা সাবস্ক্রিপশন

 

আপনার গ্রুপের কন্টেক্ট যদি খুবই তথ্যবহূল হয় যার প্রতি মানুষের আগ্রহ রয়েছে। অথবা যদি আপনি আপনার গ্রুপের মাধ্যমে বিভিন্ন সেবা দিয়ে থাকেন যেমন: স্বাস্থ্য সেবা, শিক্ষকতা, কনসাল্টিং ইত্যাদি।

তাহলে আপনি আপনার গ্রুপে সাবস্ক্রিপশন ফিচারটি চালু করতে পারেন।

ফেসবুক কোম্পানি ২০১৮ সালে একটি বড় ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করতে এডমিনদের যে সময় ও শ্রম দিতে হয় সে কথা বিবেচনা করে গ্রুপ এডমিনদের আয়ের কথা চিন্তা করে ফেসবুক গ্রুপে এই সাবস্ক্রিপশন ফিচারটি চালু করে।

এই ফিচারটির মাধ্যমে আপনি আপনার ফেসবুক গ্রুপের সদস্যদের কাছে মাসিক সাবস্ক্রিপশন চার্জ করতে পারবেন আপনার গ্রুপে যে কন্টেন্ট বা সার্ভিস দেন তা পাওয়ার জন্য।

এই সাবস্ক্রিপশন চার্জ আপনি ০.৯৯ ডলার থেকে ৯.৯৯ ডলার পর্যন্ত করতে পারবেন। আর এই টাকা লেনদেন হবে ফেসবুকের মাধ্যমে তাই টাকা নিরাপদে আপনার কাছে চলে আসবে।

আমি উপরে ফেসবুক গ্রুপ সম্পর্কে যে নিয়মগুলোর কথা বললাম ফেসবুক থেকে এমন কোন ধরাবাধা নিয়ম নেই। এটা বলার কারণ হচ্ছে আপনার গ্রুপটি যদি তথ্যবহূল না হয় তাহলে মানুষ টাকা দিয়ে আপনার গ্রুপের সাবস্ক্রিশন কিনবে না।

অবশ্যই আপনার গ্রুপে এমন কিছু থাকতে হবে যা সম্পর্কে মানুষ জানতে আগ্রহী বা যা মানুষের প্রয়োজন আছে। তবেই মানুষ টাকা দিয়ে আপনার ফেসবুক গ্রুপের সাবস্ক্রিপশন নিবে। এবং আপনি আয় করতে পারবেন।

 

৫. অ্যাডমিন ডিল

 

আপনার ফেসবুক গ্রুপ যদি বাই এন্ড সেল (Buy and Sell) টাইপের হয়ে থাকে তাহলে আপনি সেখানে অ্যাডমিন ডিল (Admin deal) করার মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারবেন।

উদাহরণস্বরূপ: অনলাইনে সহজেই কেউ কিন্তু কাউকে বিশ্বাস করতে চায় না। তাই কেউ যখন কোন কিছু বিক্রি তখন যে কিনেছে সে টাকা দিবে কিনা এ বিষয়ে অনেক দুশ্চিন্তা থাকে। আবার এই দুশ্চিন্তার কারণেই অনেকে এডভান্স টাকাও দিতে চায় না। তাই যখন কেউ আপনার গ্রুপের মাধ্যমে কোন কিছু ক্রয়-বিক্রয় করবে তখন আপনার মাধ্যমে ডিল করলে ক্রেতা বিক্রেতা সবাই সেফ থাকবে। অর্থাৎ, ক্রেতা যখন কোন কিছু কিনবে তখন বিক্রেতাকে টাকা না দিয়ে আপনার কাছে জমা রাখবে, ক্রেতা পণ্য বুঝে পাওয়ার পর আপনাকে জানাবে তখন আপনি বিক্রেতাকে টাকা দিয়ে দিবেন। এবং এই লেনদেন করে দেওয়ার জন্য আপনি নির্দিষ্ট পরিমাণ কমিশন চার্জ করবেন।

আমি নিজেও ফেসবুকে অনেক বিশ্বস্ত অ্যাডমিনকে কমিশন দিয়ে অনেক ডিল করেছি এবং এখনও করি।

বি:দ্র: যে এডমিন এর মাধ্যমে এডমিন ডিল করবেন সে বিশ্বস্ত কিনা এ বিষয়ে প্রথমে গ্রুপে রিভিউ দেখবেন অথবা গ্রুপে অ্যাডমিন সম্পর্কে পোস্ট করেও তার সম্পর্কে জেনে নিতে পারবেন। সব জানার পর এডমিনকে ভালো মনে হলে তবেই তার মাধ্যমে ডিল করবেন।

 

৬. ফেসবুক গ্রুপ ব্যবহার করে নিজের ব্যবসার প্রচার ঘটানো

 

আপনার যদি কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থাকে আপনি সেটির প্রচার করতে পারবেন আপনার গ্রুপের মাধ্যমে। এ পদ্ধতিতে আপনি সরাসরি আপনার গ্রুপের মাধ্যমে টাকা উপার্জন না করলেও কিন্তু পরোক্ষ ভাবে ঠিকই আপনার গ্রুপের মাধ্যমে ইনকাম করছেন।

কারণ, ফেসবুক গ্রুপে আপনার ব্যবসার প্রচার করার পর যেসব নতুন ক্রেতা আপনি পাবেন তারা কিন্তু আপনার গ্রুপের মাধ্যমেই আপনার ব্যবসা সম্পর্কে জানতে পেরেছে এবং ক্রেতা হয়েছে।

তাই বলাই যায় যে এই পদ্ধতিতে আপনি সরাসরি ফেসবুক গ্রুপ থেকে উপার্জন করতে না পারলেও পরোক্ষ ভাবে ঠিকই উপার্জন করছেন।

 

৭. ফেসবুক গ্রুপ লাইভ

 

ফেসবুক গ্রুপ লাইভ করা ফেসবুক গ্রুপ থেকে টাকা আয় করার জনপ্রিয় পদ্ধতিগুলোর মধ্যে একটি।

আপনার নিজস্ব যদি কোন পণ্য থেকে থাকে বা অন্য কারও কোন পণ্য যদি আপনি সেল করে থাকেন। তাহলে সেই পণ্যটি সাথে নিয়ে আপনি আপনার ফেসবুক গ্রুপে লাইভে যাবেন এবং সেই পণ্যটি দেখাবেন। পণ্যটি সম্পর্কে ভালো মন্দ সব বললেন।

এমনটা করলে দেখবেন আপনি সরাসরি সেখানে লাইভ চলা কালীন আপনার অর্ডার আসা শুরু হয়ে যাবে। আর লাইভ আপনি এক এক করে সেই সব পণ্য ডেলিভারী করার মাধ্যমে ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

 

আরও পড়ুন: কিভাবে ফেসবুক পেজের মনিটাইজেশন অন করবেন?

 

৮. স্কিল অনুযায়ী কাজ খুঁজে পাওয়া

 

মনে করেন আপনি একটি ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করেছে কন্টেন্ট রাইটিং (Content writing) রিলেটেড এবং আপনি নিজেও একজন কন্টেন্ট রাইটার।

এখন আপনার স্কিল সম্পর্কে জানিয়ে একটি ফোটো তৈরি করে তা আপনার ফেসবুক গ্রুপের কভার ফোটো দিবেন। সেই সাথে আপনার দক্ষতা সম্পর্কে জানিয়ে গ্রুপে একটি পোস্ট করবেন এবং সেই পোস্টটিকে গ্রুপের পিন পোস্ট করে দিবেন যাতে সকলেই দেখতে পায়।

যেহেতু আপনার ফেসবুক গ্রুপটি একটি টার্গেটেড গ্রুপ অর্থাৎ আপনি যে কাজ জানেন সে সম্পর্কিত গ্রুপ তাই আপনি যখন আমি উপরে যা বললাম তা করবেন তখন আপনি আপনার ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমেই অনেক কাজ পাবেন এবং ভালো পরিমাণ টাকাও আয় করতে পারবেন।

 

৯. ডোনেশন সংগ্রহ করা

 

আপনার ফেসবুক গ্রুপের কন্টেন্ট গুলো যদি তথ্যবহূল হয় তখন কিন্তু আপনার ফেসবুক গ্রুপের সদস্যদের সাথে আপনার একটি ভালো সম্পর্ক তৈরি হবে। তখন আপনি চাইলে আপনার গ্রুপ সদস্যদের আরও নিয়মিত আপনার কন্টেন্ট জন্য ডোনেশন চাইতে পারেন।

যেহেতু তারা আপনার কন্টেন্ট চায় এবং এগুলো লেখতে বা তৈরি করতে আপনার অনেক সময় ও শ্রম যায় তাই তাদের ভিতর অনেকেই আপনাকে ডোনেশন দিবে।

আপনি এই ডোনেশনের টাকা বাংলাদেশে হলে বিকাশ (Bikash), রকেট (Rocket), নগদ (Nagad), উপায় (Upay) কিংবা ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমেও নিতে পারবেন।

আবার যদি বাইরের দেশ থেকে কেউ ডোনেশন পাঠাতে চায় সেক্ষেত্রে আপনি মাস্টারকার্ড (Mastercard), পেপাল (Paypal), পেওনিয়ার (Payoneer) এসব ব্যবহার করতে পারবেন।

 

১০. গ্রুপ বিক্রি করা

 

আপনার গ্রুপে যদি অনেক সদস্য থাকে এবং আপনি গ্রুপটি আর ব্যবহার করতে না চান তবে আপনি সেই গ্রুপটি অন্যের কাছে বিক্রি করে দিতে পারবেন।

আপনি অনেক মানুষ পাবেন যারা এই ধরনের গ্রুপ কেনার জন্য খুঁজতেছে।

আপনি আপনার গ্রুপেই সেল পোস্ট দিয়ে আপনার গ্রুপটি সহজেই বিক্রি করতে পারবেন।

 

পরিশেষে, এই আর্টিকেলে আমরা ফেসবুক গ্রুপ থেকে টাকা আয় করার ১০টি কার্যকরী উপায় দেখলাম। সেই সাথে আপনি এ বিষয়েও বিস্তারিত বুঝতে পারলেন যে ফেসবুক গ্রুপ থেকে কিভাবে টাকা ইনকাম করবেন।

আপনার যদি এই বিষয়ে আরও কোন প্রশ্ন থাকে তা কমেন্ট বক্সে জানাতে পারেন। আমি যত দ্রুত সম্ভব আপনার কমেন্টের রিপ্লাই দেওয়ার চেষ্টা করবো।

Spread the love

হ্যালো "ট্রিকবিডিব্লগ" বাসী আমি ওসমান আলী। দীর্ঘদিন থেকে অনলাইনে লেখালেখির পেশায় যুক্ত আছি। Trick BD Blog আমার নিজের হাতে তৈরি করা একটি ওয়েবসাইট। এখানে আমি প্রতিনিয়ত ব্লগিং, ইউটিউবিং ও প্রযুক্তি সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ টিপস এন্ড ট্রিক্স রিলেটেড আর্টিকেল প্রকাশ করে থাকি।

Leave a Comment