আপনার কোন স্কিলটা শেখা উচিত ভবিষ্যতের জন্য [৫টি স্কিল]

বর্তমান সময়ে এসে আপনি যদি কোনো কাজ না জেনে থাকেন তবে আপনার চলার পথ অনেক মুশকিল হবে।

কারণ এখন প্রায় সব ধরনের কোম্পানিই তাদের কোম্পানির জন্য খুঁজে একজন দক্ষ মানুষ।

তাই অনলাইন হোক বা অফলাইন যেখানেই কাজ করতে চাননা কেন আপনাকে আপনার স্কিল ডেভলপমেন্টের দিকে ফোকাস করতে হবে। অর্থাৎ আপনাকে একজন দক্ষ মানুষ হতে হবে।

এই আর্টিকেলে আমি আপনার কোন স্কিলটা শেখা উচিত ভবিষ্যতের জন্য সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

কারণ, এমন কিছু কাজ রয়েছে যেগুলো জানা থাকলে বর্তমান সময়ে হয়তো কাজ পাবেন কিন্তু নিকট ভবিষ্যতে গিয়ে আর সেসব কাজ নাও থাকতে পারে।

এই আর্টিকেলে আমি যে স্কিল গুলোর কথা আপনাদের সাথে সেয়ার করবো তা যদি আপনি শিখতে পারেন তাহলে আগামী ৫-৭ বছর সেই কাজ গুলো করতে পারবেন।

৫-৭ বছর বলার কারণ হচ্ছে, তথ্য ও প্রযুক্তির যে বিপ্লব ঘটছে প্রতিনিয়ত এতে করে ৫-৭ বছর পর তথ্য প্রযুক্তি কোন দিকে মোড় নিবে তা বলা মুশকিল।

 

ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের উপর স্কিল ডেভলপমেন্ট করা

 

ডিজিটাল মার্কেটিং (Digital Marketing) হচ্ছে অনলাইনে বিভিন্ন প্লাটফর্মে কোনো পণ্য বা সেবার প্রমোশন করা। অর্থাৎ একটি পণ্য কাদের জন্য তৈরি করা হয়েছে ঠিক তাদের কাছেই আপনাকে দেখাতে হবে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে।

বর্তমান সময়ে সব কোম্পানিই অফলাইনের পাশাপাশি অনলাইনেই চলে আসছে। এইসব কোম্পানি তাদের পণ্যের সঠিক প্রচারের জন্য প্রতিনিয়তই দক্ষ ডিজিটাল মার্কেটার খুঁজে থাকেন।

এই ডিজিটাল মাকের্টিংয়ের আবার অনেকগুলো উপশাখা রয়েছে। যেমন: স্যোসাল মিডিয়া মার্কেটিং (Social Media Marketing), ইমেইল মার্কেটিং (E-mail Marketing) ইত্যাদি।

আপনি ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের যে কোন একটি উপশাখাকে নির্বাচন করে সে বিষয়ে আপনার স্কিল ডেভলমেন্ট করবেন।

কারণ কোম্পানি গুলো এখন নির্দিষ্ট কাজের জন্য সেই বিষয়ে সবচেয়ে দক্ষ মানুষকে খুঁজে থাকে।

 

ভিডিও এডিটিংয়ের উপর স্কিল ডেভলপমেন্ট করা

 

ভিডিও কন্টেন্টের মার্কেট বর্তমানে ব্যাপক এবং এর পরিধিও বিশাল। উদাহরণ স্বরূপ আপনি ইউটিউবকে (Youtube) দেখেন।

ইউটিউবে লক্ষ লক্ষ ব্যবহারকারী প্রতিনিয়ত ভিডিও দেখে থাকেন। এবং এইসব ভিডিও তৈরি করে থাকেন ইউটিউবারেরা (Youtuber)।

আর ইউটিউবে ইউটিউবারের সংখ্যাটা প্রায় বেহিসেবিই। কোন ইউটিউবারই কিন্তু ভিডিও রেকর্ড করে সরাসরি তাদের চ্যানেলে পাবলিশ করে দেয় না।

ভিডিও রেকর্ড করার পর সেটিকে ভালোভাবে এডিট করার প্রয়োজন হয়।

কিছু কিছু ইউটিউবার নিজের ভিডিও নিজে এডিট করলেও অসংখ্য ইউটিবার কিন্তু তাদের ভিডিও এডিটিং (Video Editing) করার জন্য একজন ভিডিও এডিটর (Video Editor) হায়ার করে থাকে।

তাছাড়া ইউটিউব বাদেও আরও অসংখ্য প্লাটফর্ম ভিডিও প্লাটফর্ম রয়েছে অনলাইনে। যেমন: ফেসবুক (Facebook), টিকটক (Tiktok) ইত্যাদি।

তাই আপনি যদি ভিডিও এডিটিংয়ের উপর আপনার স্কিল ডেভলপমেন্ট করে থাকেন কাজে আপনার কাজের অভাব পড়বে না।

 

কপিরাইটিংয়ের উপর স্কিল ডেভলপমেন্ট করা

 

একটি কথাকে অনেক ভাবে গুছিয়ে বলা যায় কিন্তু অর্থ একই থাকে। যেমন: ‘আমি ভাত খাব’ এই কথাটিকে আবার বলা যায় যে, ‘আমি দুপুরে ভাত খাব, আপনি আরও ঘুরিয়ে বলতে পারবেন যে ’আমি দুপুরে মাছ ও মাংস দিয়ে ভাত খাব’। এই সব গুলো কথার অর্থ কিন্তু একটিই। কিন্তু বলার ধরন ভিন্ন ভিন্ন।

কপিরাইটিংয়ের (Copywriting)  কাজ হচ্ছে একটি বিষয়ে সুন্দর ভাবে গুছিয়ে লেখা। যাতে মানুষ আকর্ষিত হয়।

কোম্পানি গুলো তাদের পণ্যের প্রচারের জন্য দক্ষ কপিরাইটারের (Copywriter) খোঁজ করে থাকেন।

তাই আপনি যদি কপিরাইটিংয়ের উপর আপনার স্কিল ডেভলপমেন্ট করে থাকেন তাহলে অনেক পাবেন।

 

সেলসের উপর স্কিল ডেভলপমেন্ট করা

 

সেলসের (Sales) উপর যার দক্ষতা রয়েছে তার কাজ খোজার প্রয়োজন নেই, কাজই তাকে খুঁজে বের করবে।

কারণ প্রত্যেক কোম্পানিরই রয়েছে অনেক ধরনের পণ্য এবং সব কোম্পানিরই মূখ্য উদ্দেশ্য হচ্ছে সেই সব পণ্য গুলো কাস্টমারের কাছে সেল করা। পণ্য যত সেল হবে, একটি কোম্পানিও তত বড় হবে।

তাই কেও যখন একটি কোম্পানিকে বলবে যে সে তাদের কোম্পানির পণ্যগুলো সেল করে দিবে, তখন সেই কোম্পানি অনায়াসেই তাকে চাকরী দিতে চাইবে।

কারণ, কথায় আছে যে পাগলও নিজের ভালো বুঝে।

তাই আপনি সেলসের উপর আপনার স্কিল ডেভলপমেন্ট করতে পারেন।

 

এসইও এর উপর স্কিল ডেভলপমেন্ট করা

 

এসইও (SEO) ফূল ফর্ম হচ্ছে, ‘সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (Search Engine Optimization)’।

যার মানে হচ্ছে আপনি একটি ওয়েবসাইট বা আর্টিকেলের অন পেজ এসইও, অফ পেজ এসইও, টেকলিক্যাল এসইও করে সেই ওয়েবসাইট বা ওয়েবসাইটের আর্টিকেলগুলোকে গুগল সহ অন্যান্য যেসব সার্চ ইঞ্জিন রয়েছে সেগুলোর সার্চ রেজাল্টে রেংকে নিয়ে আসবেন।

ওয়েবসাইটে অর্গানিক ট্রাফিক আনার নিয়ম যতগুলো রয়েছে তার মধ্যে এসইও অন্যতম।

তাই ওয়েবসাইটের কর্তৃপক্ষরা তাদের ওয়েবসাইট বা ওয়েবসাইটের আর্টিকেলগুলোকে রেংকে আনার জন্য এসইও এক্সপার্টদের (SEO Expert) হায়ার করে থাকে।

আপনি যদি এসইও এর উপর আপনার স্কিল ডেভলপমেন্ট করেন তাহলেও অনেক কাজ পাবেন।

পরিশেষে, উপরে ‘আপনার কোন স্কিলটা শেখা উচিত ভবিষ্যতের জন্য’ টপিকে যে স্কিলগুলো নিয়ে আমি আলোচনা করলাম এর কোনো একটি স্কিল যদি আপনি ভালোভাবে আয়ত্ত করতে পারেন বা সে বিষয়ে দক্ষ হয়ে উঠতে পারেন তাহলে আশাকরি আপনার কাজের অভাব হবে না।

Spread the love

হ্যালো "ট্রিকবিডিব্লগ" বাসী আমি ওসমান আলী। দীর্ঘদিন থেকে অনলাইনে লেখালেখির পেশায় যুক্ত আছি। Trick BD Blog আমার নিজের হাতে তৈরি করা একটি ওয়েবসাইট। এখানে আমি প্রতিনিয়ত ব্লগিং, ইউটিউবিং ও প্রযুক্তি সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ টিপস এন্ড ট্রিক্স রিলেটেড আর্টিকেল প্রকাশ করে থাকি।

Leave a Comment