১.৫ টন এসির মাসিক বিদ্যুৎ খরচ কত টাকা ২০২৪

রুমের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য সামর্থবান মানুষের প্রথম পছন্দই হচ্ছে এসি বা এয়ার কন্ডিশনার (AC: Air Conditioner) ।

এখন এই এসি কেনার পূর্বে কম বেশী সবার মাথাতেই একটি প্রশ্ন ঘুরপাক খায় যে একটি এসি ব্যবহার করলে মাসে কত টাকা বিদ্যুৎ বিল আসে?

সেজন্যই মূলত আজকের এই আর্টিকেলটি লেখা। এই আর্টিকেলটিতে আপনি একটি ১.৫ টন এসির মাসিক বিদ্যুৎ খরচ কত টাকা আসে সে বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

তাই আর দেরী না করে চলুন মূল আর্টিকেল শুরু করা যাক।

 

১.৫ টন নন ইনভার্টার এসির মাসিক বিদ্যুৎ খরচ কত টাকা ২০২৪

 

বিদ্যুৎ খরচ কে বলা হয়ে থাকে এনার্জি খরচ। আর এই এনার্জি (Energy) কে ’E’ দ্বারা প্রকাশ করা হয়। এই এনার্জি খরচ বের করার একটি সূত্র রয়েছে।

এনার্জি খরচ বের করার একটি সূত্রটি হচ্ছে, ’E (Energy) = P (Power) x T (Time)’।

এখানে Power দ্বারা এসিটি কত ওয়াটের এবং Time দ্বারা এসিটি কত সময় চলেছে তা বুঝায়।

এসি তৈরি করার অনেক কোম্পানি রয়েছে। এই কোম্পানি ভেদে ১.৫ টন এসি ১৪৫০ ওয়াট থেকে শুরু ১৯৫০ ওয়াট পর্যন্ত পাওয়ার গ্রহণ করে থাকে।

এখানে আমরা পাওয়ার ১৯০০ ওয়াট ধরে একটি ১.৫ টন নন ইনভার্টার এসির মাসিক বিদ্যুৎ খরচ কত টাকা আসে সে হিসেবটি এখন বের করবো।

চলুন প্রথমে ১৯০০ ওয়াটের একটি ১.৫ টন নন ইনভার্টার এসির এক (১) ঘণ্টায় কত টাকা বিদ্যুৎ খরচ হয় সে হিসেবটা বের করি।

এসির বিদ্যুৎ খরচ বের করার সূত্রটি হচ্ছে, E (Energy) = P (Power) x T (Time)

=  1900 Watt x 1 Hour ( ওয়াটকে সময়ের সাথে গুণ করতে হবে।

= 1900 Wh / 1000 (এবার ওয়াট আওয়ারকে কিলোওয়াট আওয়ারে রূপান্তর করতে হবে। আর কিলোওয়াট আওয়ারে রূপান্তর করার জন্য ওয়াট আওয়ারকে ১০০০ দিয়ে ভাগ করতে হবে।)

= 1.9 KWH (1 Kwh = 1 Unit, এবার এক ইউনিট কত টাকা সে হিসেব করে টোটাল ইউনিটের সাথে গুণ করতে হবে।)

= 1.9 KWH x 6 Taka (প্রতি ইউনিট ৬ টাকা করে ধরা হয়েছে।)

= 11.40 Taka

অর্থাৎ, আপনি যদি ১৯০০ ওয়াটের একটি ১.৫ টন নন ইনভার্টার এসি একটানা ১ ঘণ্টা চালান বা ব্যবহার করে তবে আপনার বিদ্যুৎ আসবে বা খরচ হচ্ছে ১১.৪০ টাকা।

আপনি যদি একটানা ৬ ঘণ্টা একটি ১৯০০ ওয়াটের একটি ১.৫ টন নন ইনভার্টার এসি চালান আপনার বিদ্যুৎ খরচ হবে ১১.৪০ x ৬ = ৬৮.৪০ টাকা।

আবার আপনি যদি একটানা ১২ ঘণ্টা একটি ১৯০০ ওয়াটের একটি ১.৫ টন নন ইনভার্টার এসি চালান আপনার বিদ্যুৎ খরচ হবে ১১.৪০ x ১২ = ১৩৬.৮০ টাকা।

এক কথায় আপনি দৈনিক যত ঘণ্টা এসি ব্যবহার করবেন তার সাথে এক ঘণ্টায় যত টাকা বিদ্যুৎ বিল আসে তা গুণ দিলেই আপনার ফলাফল পেয়ে যাবেন।

এবার আলোচনা করা যাক যে, একটি ১.৫ টন এসির মাসিক বিদ্যুৎ খরচ কত টাকা?

ধরে নেই আপনি দৈনিক ১২ ঘণ্টা এসি ব্যবহার করেন এবং ১২ ঘণ্টায় আপনার বিদ্যুৎ বিল আসে ১৩৬.৮০ টাকা।

যেহেতু ৩০ দিনে এক মাস তাই ৩০ এর সাথে ১৩৬.৮০ টাকা গুণ দিলেই হিসেব বের হয়ে আসবে। যেমন:

১৩৬.৮০ x ৩০

= ৪,১০৪ টাকা।

সুতরাং, একটি ১৯০০ ওয়াটের একটি ১.৫ টন নন ইনভার্টার এসি এক মাস ব্যবহার করলে আপনার মাসিক বিদ্যুৎ খরচ হবে ৪,১০৪ টাকা।

এখন আপনি যদি আরও কম সময় অথবা বেশি সময় এসি ব্যবহার করেন সে হিসেবে আপনার বিদ্যুৎ খরচও কম বেশি হবে।

 

নন ইনভার্টার এসিতে বিদ্যুৎ খরচ বেশি আসে কেন?

 

একটি নন ইনভার্টার এসিতে বিভিন্ন কারণে বিদ্যুৎ খরচ বেশি আসে। সেইসব কারণ সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হয়েছে।

নন ইনভার্টার এসিতে বিদ্যুৎ খরচ বেশি আসার কারণ:

  • একটি নন ইনভার্টার এসি যতক্ষণ চালু থাকে ততক্ষণ তার পূর্ণ ক্ষমতাতেই চলতে থাকে।
  • নন ইনভার্টার এসিটি যদি ১৯০০ ওয়াট হয়ে থাকে তবে যতক্ষণ চলবে ১৯০০ ওয়াট বিদ্যুৎতই লাগবে।
  • এসটি চলমান অবস্থায় ১৯০০ ওয়াট পাওয়ার গ্রহণ করলেও যখন বন্ধ অবস্থা থেকে চালু করা হয় তখন রানিং অবস্থার চেয়ে দুই থেকে তিন বিদ্যুৎ গ্রহণ করে থাকে।
  • নন ইনভার্টার এসি চালু করলে একটানা চলে না, এটি অফ হয়। তবে কত সময় পর অফ এবং অন হবে এটি নির্ভর করবে আপনার ঘরের তাপমাত্রার উপর। যেমন: দিনের বেলা অনেক তাপ থাকে, এমন অবস্থায় মনে করেন আপনার ঘরের তাপমাত্রা সিলেক্ট রয়েছে ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যখন এসিটি চলতে চলতে আপনার ঘরের তাপমাত্রা ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছবে তখন এসির আউটডর ইউনিটটি বন্ধ হয়ে যায়। আবার যখন ঘরের তাপমাত্রা বেড়ে যায় অর্থাৎ ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরে চলে যায় তখন এসিটি পুনরায় চালু হয়ে যায়।

 

এইসব উপরোক্ত কারণ সমূহের জন্যই মূলত একটি নন ইনভার্টার এসিতে বিদ্যুৎ খরচ বেশি হয়ে থাকে।

 

ইনভার্টার এসির সুবিধা কি কি?

 

ইনভার্টার এসির বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে যার ফলে এটি বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী হয়ে থাকে। সেইসব সুবিধা গুলো সম্পর্কে এখন আমরা জানবো।

ইনভার্টার এসির সুবিধা গুলো কি কি:

  • ইনভার্টার এসিতে ইনভার্টার নামক একটি যন্ত্র ব্যবহার করা হয়।
  • এই ইনভার্টারের মাধ্যমে প্রত্যেক এসির আউটডর ইউনিটে কম্প্রেশন (Compression) নামক যন্ত্র থাকে।
  • কম্প্রেশন যন্ত্রটির মাঝে একটি মটর থাকে যার উপর এসির ক্ষমতা নির্ভর করে।
  • যদি আপনার এসির ক্ষমতা ১৯০০ ওয়াট হয়ে থাকে তাহলে সেই মটরের ক্ষমতাও ১৯০০ ওয়াট।
  • ইনভার্টার এই ১৯০০ ওয়াটের মটরটিকে পূর্ণ ক্ষমতায় চালু হতে দেয় না, আস্তে আস্তে চালু হয়। অর্থাৎ প্রথমে ১০০ ওয়াট, ২০০ ওয়াট এভাবে করে একটা নির্দিষ্ট সময় পর এসিটি পূর্ণ ক্ষমতায় চলতে থাকে।
  • আপনার ঘরের তাপমাত্রা যত ডিগ্রী সেলসিয়াস সিলেক্ট থাকবে তত ডিগ্রিতে পৌঁছানোর পর এসির আউটডর ইউনিট একেবারে বন্ধ হয়ে যায় না আস্তে আস্তে চলতে থাকে। যখন ঘরের তাপমাত্রা বেড়ে যায় তখন একটু দ্রুত চলে আবার যখন তাপমাত্রা কমে যায় তখন আবার আস্তে আস্তে চলতে থাকে।

 

যেহেতু্ ইনভার্টার এসি চালু হওয়ার সময় পূর্ণ ক্ষমতায় চালু না হয়ে ধীরে ধীরে চালু হয়, ঘরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য এসিটি পূর্ণ ক্ষমতায় না চলে ধীরে ধীরে চলে ঘরের তাপমাত্রা সমন্বয় করে ফলে এটি কম বিদ্যুৎ গ্রহণ করে।

আর এই সমস্ত কারণের ফলেই একটি নন ইনভার্টার এসির চেয়ে একটি ইনভার্টার এসি কম বিদ্যুৎ গ্রহণ করে থাকে।

তবে বাইরের তাপমাত্রা আপনার এসির বিল কত টাকা আসবে তার উপর একটি বড় ভূমিকা পালন করে থাকে।

কারণ সারাদিন বাইরের তাপমাত্রা বেশি থাকলে আপনার ঘরের তাপমাত্রা ঠিক রাখার জন্য এসিকে জোরে চলতে হয়। সেক্ষেত্রে সাধারণতই একটু বিদ্যুৎ খরচ হবে। আবার বাইরের তাপমাত্রা কম থাকলে বিদ্যুৎ খরচ আরোও কম হবে।

 

১.৫ টন কোন কোম্পানির এসি কত ওয়াটের হয়ে থাকে?

 

সব কোম্পানির ১.৫ টন একই ওয়াটের হয়ে থাকে না। কোম্পানি ভেদে ১.৫ টন এসি বিভিন্ন ওয়াটের হয়ে থাকে।

১.৫ টন কোন কোম্পানির এসি কত ওয়াট:

নাম টন ওয়াট
Walton ১.৫ ১৮৭০
Singer ১.৫ ১৯০০
eco+ ১.৫ ১৭৯০
General ১.৫ ১৯২০
Sharp ১.৫ ১৪৫০
Gree ১.৫ ১৯৪০

 

 

আরও পড়ুন:

 

পরিশেষে, এই ‘১.৫ টন এসির মাসিক বিদ্যুৎ খরচ কত টাকা ২০২৪’ আর্টিকেলটিতে আমি চেষ্টা করেছি যে ১.৫ টন এসির মাসিক বিদ্যুৎ খরচ কত টাকা আসতে পারে সে বিষয়ে আপনাদের বিস্তারিত জানাতে। আশাকরি আর্টিকেলটি আপনার একটু হলেও উপকারে এসেছে।

Spread the love

হ্যালো "ট্রিকবিডিব্লগ" বাসী আমি ওসমান আলী। দীর্ঘদিন থেকে অনলাইনে লেখালেখির পেশায় যুক্ত আছি। Trick BD Blog আমার নিজের হাতে তৈরি করা একটি ওয়েবসাইট। এখানে আমি প্রতিনিয়ত ব্লগিং, ইউটিউবিং ও প্রযুক্তি সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ টিপস এন্ড ট্রিক্স রিলেটেড আর্টিকেল প্রকাশ করে থাকি।

Leave a Comment